বিয়ের রাতে বউয়ের অলঙ্কার, নগদ টাকা ও মোটর বাইক নিয়ে বেপাত্তা জামাই, ঘটনা রায়গঞ্জে

বিয়ের রাতেই বউয়ের সোনার অলঙ্কার, নগদ টাকা ও শ্বশুরের নতুন মোটরবাইক নিয়ে বেপাত্তা জামাই। প্রতারক জামাই, অলঙ্কার ও মোটর বাইকের খোঁজে হন্যে হয়ে ঘুরছে নববধূ ও তাঁর পরিবারের লোকজন। ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর দিনাজপুর জেলার রায়গঞ্জ থানার বাজিতপুর গ্রামে। প্রতারিত নববধূ রায়গঞ্জ থানার পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছেন । লিখিত অভিযোগ পেয়ে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে রায়গঞ্জ থানার পুলিশ।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, ইটাহার থানার চুড়ামনের বাসিন্দা আখতারের সাথে ফোনে আলাপ হয় রায়গঞ্জের বাজিতপুরের বাসিন্দা সমজান আলি ও আলিয়া খাতুনের মেয়ে ঝারিনা খাতুনের। দুই পরিবারের অজান্তেই দীর্ঘ প্রায় আট মাস ধরে ফোনে যোগাযোগ, দেখা করার মাধ্যমে আখতার ও ঝারিনার মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। চলতি মাসের ১১ তারিখে রায়গঞ্জে এসে ঝারিনার সাথে দেখা করে আখতার। আদালতে একটি কাগজে সই করে বিয়েও হয় তাদের বলে জানিয়েছেন ঝারিনা।

ঝারিনার দাবী, সেদিনই আখতার চুড়ামনে নিয়ে যায় তাকে। যদিও দূর থেকেই একটি বাড়িকে নিজের বাড়ি বলে পরিচয় দিয়ে সেখান থেকে চলে আসেন তারা। এরপর নব দম্পতি চলে আসে ঝারিনার বাজিতপুরের বাড়িতে। ঝারিনার বাবা ও মা মেয়ের আচমকা বিয়ে করে নেওয়ার বিষয়টিকে প্রাথমিক ভাবে মেনে না নিলেও পরে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। মেয়ে বিয়ে করেছে এই আনন্দে পাড়া প্রতিবেশী ডেকে পোলাও মাংস রেঁধে খাওয়ান আলিয়া খাতুন।

এরপরেই ঘটে বিপত্তি। পরদিন ভোরের আলো ফোটার আগেই বেপাত্তা হয়ে যায় আখতার। অভিযোগ, সোনার অলঙ্কার, নগদ পাঁচ হাজার টাকা, শ্বশুর সমজান আলির নতুন মোটরবাইকটি নিয়ে চম্পট দেয় জামাই আখতার। এই ঘটনা নিয়ে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে বাজিতপুর গ্রামে। ঝারিনার পরিবারের দাবী, আখতারের সাথে টেলিফোন মারফৎ যোগাযোগ করা হলে নম্বর সুইচ অফ পাওয়া যায়।

এরপরেই প্রতারক জামাইয়ের বিরুদ্ধে ঘটনার পূর্ণাঙ্গ বিবরণ জানিয়ে রায়গঞ্জ থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করে প্রতারিত পরিবার। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে রায়গঞ্জ থানার পুলিশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

WhatsApp chat